logo
the biggest site of
General Knowledge
for knowledge seekers

বাংলা সাহিত্যের সংক্ষিপ্ত প্রশ্নত্তর
Short Questions of Bangui Literature

  Back   |    New Questions     নতুন প্রশ্নের জন্য New Questions বাটনে ক্লিক করুন।
»
ভারতচন্দ্র রায় গুণাকর মধ্যযুগের শেষ কবি। তিনি কৃষ্ণনগরের রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের রাজকবি ছিলেন। রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের নির্দেশেই ১৭৫২ সালে তিনি ‘অন্নদামঙ্গল’ কাব্যটি রচনা করেছিলেন।
»
লৌকিক কাহিনীর প্রথম রচয়িতা দৌলত কাজী। দৌলত কাজীর জীবনকাল আনুমানিক ১৬০০-১৬৩৮।
»
‘বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষৎ’ গঠিত হয়েছিল ‘১৮৯৫ সালে বাঙালি মধ্যবিত্তের সাহিত্যচর্চা ও সাধনার লক্ষ্যে, তবে এ পরিষদের মুসলমান সাহিত্যিকদের গুরুত্ব উপেক্ষিত হওয়ায় ১৯১১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ‘বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য সমিতি’। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯২৬ সালে ‘ঢাকা মুসলিম সাহিত্য সমাজ’ প্রতিষ্ঠিত হয়।
»
বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন চর্যাপদ। চর্যাপদে প্রান্ত পদের সংখ্যা মোট ৫১টি। তার মধ্যে একটি (১১ সংখ্যক) পদটি কারও কর্তৃক ব্যাখ্যা হয়নি। আবার পুঁতির কয়েকটি পাতা নষ্ট হওয়ায় তিনটি সম্পূর্ণ (২৪, ২৫, ৪৮ সংখ্যক) পদ এবং একটি (২৩ সংখ্যক) পদের শেষাংশ পাওয়া যায়নি। তাই পুঁথিতে সর্বসমেত সাড়ে ছেচল্লিশটি পদ পাওয়া গেছে।
»
কোরআন শরীফের প্রথম অনুবাদক হলেন ভাই গিরিশচন্দ্র সেন। তিনি ১৮৮৬ সালে কোরআন শরীফ অনুবাদ করেন। অনুবাদের জন্য তাঁকে ‘ভাই’ উপাধি দেয়া হয়। তাঁর বাড়ি নরসিংদী জেলায়।
»
ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগের পণ্ডিত মৃত্যুঞ্জয় বিদ্যালঙ্কার উইলিয়াম কেরীর সংস্কৃত ‘সিংহাসনদ্বাত্রিংশিকা’ থেকে বাংলায় ‘বত্রিশ সিংহাসন’ অনুবাদ করেন। এটি একটি লোককথা। ইতিহাসের কাল্পনিক চরিত্র বিক্রমাদিত্যের সিংহাসনের চারদিকে আবৃত ৩২ টি পুতুলের মুখ দিয়ে বলা কাহিনী এর বিষয়বস্তু।
»
বাংলা সাহিত্যে সনেট রচনার প্রবর্তক মাইকেল মধুসূদন দত্ত। ইতালিয় রেনেসাঁর সন্ধিক্ষণে চতুর্দশ শতকে কবি পেত্রাক সনেটের উদ্ভাবক।
»
১৭৫৩ সালে ইংরেজরা কলকাতার লালবাজারে উত্তর-পূর্ব কোণে ‘প্লে হাউস’ নামে রঙ্গালয় প্রতিষ্ঠা করেন।
»
মাইকেল মধুসূদন দত্ত বাংলা সনেটের জনক। তাঁর ‘চতুর্দশপদী কবিতাবলী’ গ্রন্থে ১০২টি সনেট সন্নিবেশিত হয়েছে।
»
লৌকিক কাহিনীর প্রথম রচয়িতা দৌলত কাজী। দৌলত কাজীর জীবনকাল আনুমানিক ১৬০০-১৬৩৮।
»
দিগদর্শনের প্রথম সংখ্যাটি ১৮১৮ সালের এপ্রিল মাসে প্রকাশ হয়। বঙ্গদর্শন ১৮৭২ সালে, সংবাদ প্রভাকর ১৮৩১ সালে এবং তত্ত্ববোধিনী ১৮৪৩ সালে প্রকাশিত হয়।
»
শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ১৯০৩ সালে ‘কুন্তলীন পুরস্কার’, ১৯২৩ সালে ‘জগত্তারিণী পুরস্কার’ লাভ করেন। বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদের সদস্যপদ লাভ করেছিলেন ১৯৩৪ সালে। ১৯৩৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে ডিলিট উপাধিতে ভূষিত করে।
»
‘চিলেকোঠার সিপাই’ আখতারুজ্জামান ইলিয়াস রচিত একটি রাজনৈতিক উপন্যাস। উপন্যাসটি ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের প্রেক্ষাপটে রচিত।
»
‘তত্ত্ববোধিনী’ পত্রিকা প্রকাশিত হয় ১৮৪৩ সালে। এর সম্পাদক ছিলেন অক্ষয়কুমার দত্ত। ‘তত্ত্ববোধিনী’ ছিল ব্রাহ্ম সমাজের মুখপত্র।
»
ভারতচন্দ্র রায় গুণাকর মধ্যযুগের শেষ কবি। তিনি কৃষ্ণনগরের রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের রাজকবি ছিলেন। রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের নির্দেশেই ১৭৫২ সালে তিনি ‘অন্নদামঙ্গল’ কাব্যটি রচনা করেছিলেন।
  New Questions  
Copyright © Sabyasachi Bairagi