the biggest site of
General Knowledge
for knowledge seekers

Amendment of Bangladeshi Constitution
বাংলাদেশের সংবিধান সংশোধন

» সংবিধান প্রণয়নের উদ্দেশ্যে ৩৪ সদস্যবিশিষ্ট একটি সংবিধান কমিটি গঠিত হয়। » কমিটির একমাত্র মহিলা সদস্য বেগম রাজিয়া বানু এবং একমাত্র বিরোধ দলীয় সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। » আইনমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন ছিলেন এ কমিটির প্রধান। » ১৯৭২ সালের ১৭ এপ্রিল কমিটির প্রথম বৈঠক হয়। » বিভিন্ন মহল থেকে পাঠানো ৯৮ টি প্রস্তাব সংবিধান কমিটির যথাযথ মূল্যায়নের পর ১০ জুন বিলের আকারের সংবিধানের খসড়া প্রস্তুত করা হয়। » খসড়াকে ত্রুটিমুক্ত ও নিখুঁত করার জন্য ভারত ও ইংল্যান্ডের পার্লামেন্টের কার্যকারিতা পর্যবেক্ষণ করা হয় এবং একজন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্রিটিশ নাগরিকের সাহায্য ও পরামর্শ গ্রহণ করা হয়।
» ১২ অক্টোবর গণপরিষদে সংবিধান উত্থাপিত হয়। » এরপর হতে ৬৫ টি সংশোধনী সংযুক্ত হয় এবং ৪ নভেম্বর, ১৯৭২ গণপরিষদে সংবিধান গৃহীত হয়। » ১৪ ডিসেম্বর ৯৩ পাতার হস্তলিখিত সংবিধানে গণপরিষদের সদস্যগণ স্বাক্ষর করেন (৩০৯ জন)। » ১৪২ অনুচ্ছেদ সংবিধান সংশোধনের ক্ষমতা। » সংসদের মোট সদস্য সংখ্যার দুই-তৃতীয়াংশ গৃহীত না হইলে অনুরূপ কোন বিল সম্মতিদানের জন্য তাহা রাষ্ট্রপতির নিকট উপস্থাপিত হইবে না। » রাষ্ট্রপতির নিকট বিল উপস্থাপিত হইলে উপস্থাপনের সাত দিনের মধ্যে তিনি তাহা করিতে অসমর্থ হইলে উক্ত মেয়াদের অবসানে তিনি বিলটিতে সম্মতিদান করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে।
» বাংলাদেশের সংবিধানের এ পর্যন্ত কতটি সংশোধনী আনা হয়েছে ? : ১৬টি । (২০১৪)
» সংবিধান সংশোধনের জন্য কত শতাংশ ভোটের প্রয়োজন হয় ? : দুই-তৃতীয়াংশ ।
» সংবিধান সংশোধন বিল রাষ্ট্রপতি কতদিনের মধ্যে পাশ করে ? : ৭ দিন ।
» পঞ্চদশ সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাস হয় কবে? : ৩০ জুন, ২০১১।
¤¤ ১৫। পঞ্চদশ সংশোধনীর বৈশিষ্ট্য: :  
» ১। তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা বাতিল, ২। অন্তর্বতী সরকার (আগের সরকারের মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্ববর্তী ৯০ দিন আগে নির্বাচন), ৩। চার মূলনীতি সংবিধানে প্রতিস্থাপন, ৪। ক্ষমতা দখল করলে সর্বোচ্চ শাস্তি, ৫। নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতা বৃদ্ধি, ৬। ধর্মের অপব্যবহার রোধ, ৭। জাতির পিাতার স্বীকৃতি, ৮। মার্চের ঐতিহাসিক ও স্বধীনতার ঘোষণা, ৯। নারী আসন বৃদ্ধি এবং ১০। ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর স্বীকৃতি।
¤ ১৪। চতুর্দশ সংশোধনী কবে সংবিধানে পাশ হয়? : ১৭ মে, ২০০৪।
» চতুর্দশ সংশোধনীর বৈশিষ্ট্য সমূহ: ১। নারী আসন, ২। প্রতিকৃতি সংরক্ষণ, ক) রাষ্ট্রপতির প্রতিকৃতি, খ) প্রধানমন্ত্রীর প্রতিকৃতি, ৩। অর্থ বিল, ৪। সংসদ সদস্যদের শপথ, ৫। বিচারপতির বয়সসীমা, ৬। পিএসসির চেয়ারম্যান ও সদস্যদের বয়সসীমা, ৭। সিএজির বয়সসীমা
¤¤ ১৩। ত্রয়োদশ সংশোধনী সংবিধানে কত তারিখে পাশ হয়? : ২৮ মার্চ, ১৯৯৬ সালে। আপিল বিভাগ কর্তৃক ঘোষিত বাতিল হয়- ১০ মে, ২০১২ সালে।
» ত্রয়োদশ সংশোধনীর বৈশিষ্ট্য সমূহ: ১। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা
» ১২। দ্বাদশ সংশোধনী সংবিধানে কত তারিখে পাশ হয়? : ৬ আগোস্ট, ১৯৯১।
» দ্বাদশ সংশোধনীর বৈশিষ্ট্য সমূহ: ১। রাষ্ট্রপতি-সসম্পর্কিত ক) জাতীয় সংসদ সদস্যদের দ্বারা নির্বাচিত হবেন, খ) রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রের অন্য সব ব্যক্তির ঊর্ধ্বে স্থান লাভ করবেন, গ) পাঁচ বছর মেয়াদকাল, ঘ) স্পিকারের কাছে পদত্যাগ করতে পারবেন, ঙ) দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে অভিশংসিত হবে, চ) ৩। উপরাষ্ট্রপতি পদ বিলোপ, ৪। সংসদ সদস্যদের অস্থাভাজন ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী হবেন, ৫। উপপ্রধানমন্ত্রী পদ বিলোপ, ৬। সংসদ অধিবেসন ৬০ দনের বেশি বিরতি থাকবে না, ৬। স্থানীয় সরকার।
¤¤ ১১। একাদশ সংশোধনী সংবিধানে পাশ হয় কবে? : ৬ আগস্ট, ১৯৯১।
» একাদশ সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। উপরাষ্ট্রপতি হিসেবে বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতিকে নিয়োগ।
¤¤ ১০। দশম সংশোধনী জাতীয় সংসেদে পাশ হয় কবে? : ১০ জুন, ১৯৯০।
» দশম সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। ৩০টি আসন মহিলাদের জন্য সংরক্ষণ, ২। ৬ মাসের মধ্যে রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচন সম্পন্ন।
¤¤ ৯। নবম সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাশ হয় কবে? : ১১ জুলাই, ১৯৮৯।
» নবম সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। রাষ্ট্রপতি ও উপরাষ্ট্রপতির মেয়াদ ৫ বছর, ২। দুই মেয়াদের অধিক রাষ্ট্রপতি বা উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হবে পারবেনা।
¤¤ ৮। অষ্টম সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাশ হয় কবে? : ১১ মে, ১৯৮৮।
» অষ্টম সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্র ধর্ম হবে ইসলাম, ২। রাষ্ট্রপতির অনুমতি ছাড়া বিদেশি খেতাব গ্রহন নিষিদ্ধ, ৩। বাংলা ভাষার ইংরেজি প্রতিশব্দ Bengali-এর পরিবর্তে Bangla. এবং ঢাকার ইংরেজি নাম Dacca এর পরিবর্তে Dhaka করা হয়।
» ৭। সপ্তম সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাশ হয় কবে? : ১০ নভেম্বর, ১৯৮৬।
» সপ্তম সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ:: ১। বিচারকদের অবসরের সয়সসীমা ৬২ থেকে ৬৫ করা হয়।
¤¤ ৬। ষষ্ঠ সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাশ হয় কবে? : ১০ জুলাই, ১৯৮১।
» ষষ্ঠ সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। ৫১(৪) ও ৬৬(২ক) উপধারা দুটির সংশোধন সাধন করা হয়।
¤¤ ৫। পঞ্চম সংশোধনী জাতীয় সংসদে পাশ হয় কবে? : ৬ এপ্রিল, ১৯৭৯। সুপ্রিমেোকর্ট কতৃক বাতিল হয় ২৭ জুলাই, ২০১০।
» পঞ্চম সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম সংযোগ, ২। মুক্তি সংগ্রাম এর পরিবর্তে স্বাধীনতা যুদ্ধ সন্নিবেশিত, ৩। বাঙালি জাতীয়তাবাদ এর পরিবর্তে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ সংযোজন, আল্লার উপর আস্থা ও বিশ্বাস, সমাজতন্ত্র এর পরিবর্তে অর্থনৈতিক ও সামাজিক ন্যায়বিচার মূলনীতি হিসেবে সংযোজন, ৪। বিচার বিভাগের স্বধীনতা পুনস্থাপন, ৫। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতা ও জাতীয় সংসদের সাথে সম্পর্ক।
¤¤ ৪। চতুর্থ সংশোধনী সংবিধানে পাশ হয় কত তারিখে? : ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারি।
» বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। রাষ্টপতি শসিত সরকারব্যবস্থা প্রবর্তন, ২। অনুগত মন্ত্রিসভা, ৩। উপরাষ্ট্রপতির পদ সৃষ্টি, ৪। বিচার বিভাগের ক্ষমতা হ্রাস, ৫। একদলীয় ব্যবস্থা, ৬। জাতীয় সংসদ সদস্যদের বাধ্যতামূলকভাবে জাতীয় দলের সদস্যপদ গ্রহণ, ৭। জাতীয় সংসদের মেয়াদ বৃদ্ধি, ৮। নাগরিক অধিকার সংকোচ, ৯। রাষ্ট্রপতির অপসারণবিধি পরিবর্তন, ১০। আইনসভার ক্ষমতা হ্রাস, ১১। নির্বাচন কমিশন ও কর্মকমিশনের ক্ষমতা, ১২। সংবাদপত্রের স্বাধীনতার বিধান বাদ দেয়া হয়।
¤¤ ৩। তৃতীয় সংশোধনী কবে পাশ হয়? : ২৮ নভেম্বর, ১৯৭৪।
» তৃতীয় সংশোধনীর বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দ্রিয়া গান্দীর মধ্যে উভয় দেশের সীমানা চিহ্নিতকরণ চুক্তি সম্পাদিত হয়।
¤¤ ২। দ্বিতীয় সংশোধনী কবে পাশ হয়? : ২২ সেপ্টেম্বর, ১৯৭৩।
» বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। রাষ্ট্রপতিকে জরুরি অবস্থা ঘোষণার ক্ষমতা প্রদান করা হয়, ২। মৌলিক অধিকার ক্ষুণ্ন, ৩। সংসদের দুটি অধিবেশনের মাঝে বিরতির সময়সীমা ১২০ দিন।
¤¤ প্রথম সংশোধনী কবে পাশ হয়? : ১৫ জুলাই, ১৯৭৩।
» বৈশিষ্ট্যসমূহ: ১। গণহত্যা এবং যুদ্ধাপরাধে লিপ্ত পাকিস্তানি সৈন্য ও তাদের সহায়ক বাহিনীর বিচারের জন্য সংশোধনী আইন প্রণীত হয়।
Copyright © Sabyasachi Bairagi