the biggest site of
General Knowledge
for knowledge seekers

Border Line of The World
বিশ্বের সীমা চিহ্নিতকরণ রেখা

» ডুরান্ড লাইনঃ আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের মধ্যকার চিহ্নিত সীমারেখাকে বলা হয় ডুরান্ড লাইন। » ১৮৯৩ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার পাক-আফগানিস্তান সীমানা নির্ধারণ করার জন্য স্যার মোটিমার ডুরান্ড এর নেতৃত্বে একটি কমিশন গঠন করেন। » কমিশন ১৮৯৬ সালে ভারত ও আফগানিস্তানের মধ্যে এ সীমারেখা চিহ্নিত করেন। » এ কমিশনের রিপোর্টের ভিত্তিতে ১৮৯৫ সালে ব্রিটেন ও আফগানিস্তানের মধ্য এক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। » চুক্তি অনুসারে ডুরান্ড লাইনের পশতুন উপজাতি অধ্যুষিত অঞ্চলগুলো ব্রিটিশ ভারতের অন্তর্ভুক্ত হয় আর অন্য অংশ আফগান সরকারের শাসনাধীনে থেকে যায়। » পরবর্তীতে ১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের পর পাকিস্তান ডুরান্ড লাইন বরাবর সীমান্তের উত্তরাধিকার লাভ করে। » এটি এখনো দেশ দুটির মধ্যকার সীমারেখা হিসেবে চিহ্নিত। » ১৯৪৯ সালে আফগানিস্তানের জাতীয় পরিষদ এ সীমারেকার ন্যায্যতা অস্বীকার করে। পাকিস্তান অবশ্য এ রেখাকে মেনে নিয়েছে।
» ম্যাকমোহন লাইনঃ ভারতের ৭০০ মাইলব্যাপী অরুনাচল প্রদেশ এবং তিব্বতের স্মরণ সিঁড়ি, সিয়াং ও লোহিত সীমান্ত জুড়ে অবস্থিত ম্যাকমোহন লাইন। » স্যার ম্যাকমোহন কর্তৃক ১৯১৪ সালে ভারত-তিব্বত চুক্তির আওতায় তিব্বত ও ভারতের মধ্যে সীমারেখা চিহ্নিত করেন। » চীন অরুনাচল প্রদেশকে ভারতের রাজ্য হিসেবে মেনে নিতে চায়নি। » তবে এখন অরুনাচল প্রদেশ ভারতের একটি অন্যতম প্রদেশ রূপে স্বীকৃতি পেয়েছে।
» ম্যাজিনো লাইনঃ জার্মান ফ্রান্সে সীমান্তে অবস্থিত ম্যাজিনো লাইন নির্মাণ করে তৎকালীন ফ্রান্স সরকার। » এটি মূলত একটি সুরক্ষিত ইলেকট্রনিক বেষ্টনী। » প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় জার্মানি এ লাইন পর্যন্ত পশ্চাদপসরণ করেছিল। এটি তৈরির উদ্দেশ্য ছিল জার্মানিদের কাছ থেকে ফ্রান্সকে রক্ষা করা।
» ওডের-নিস লাইনঃ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জার্মানি ও পোল্যান্ডের মধ্য নিরুপিত সীমারেখার নাম ওডের-নিস লাইন। » দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন সময়ে জার্মানি পোল্যান্ড দখল করলে পরবর্তীতে ইয়াল্টা সম্মেলন এবং পোটসডাম সম্মেলনে ব্রিটেন, যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়ন এ তিন মিত্রশক্তি পোল্যান্ডের সীমারেখা চিহ্নিত করে। » পোটসডাম সম্মেলনে সিদ্ধান্ত হয় যে, ওডার নদী রেখা বরাবর আরম্ভ করে পশ্চিম নীস নদীর সঙ্গমস্থল এবং পশ্চিম নীস নদীর বরাবর চেকোস্লোভাকিয়ার পূর্ব পর্যন্ত প্র্রাক্তন জার্মান ভূমিসমূহ পোল্যান্ডের শাসনাধীনে আসবে। » পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে জার্মান ও পোল্যান্ডের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিলেও লাইনটি এখনো দেশদুটির মধ্যকার সীমারেখা হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আসছে।
» ৩৮ তম অক্ষরেখাঃ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পূর্বে কোরিয়া দ্বীপটি জাপানের নিয়ন্ত্রণাধীন ছিল। » দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিলিত বাহিনী কোরিয়া দ্বীপ দখল করে নেয়। » পরে সোভিয়েত ইউনিয়নের রেড আর্মিরা উত্তর কোরিয়ার বিশাল অংশ এবং মার্কিন সেনাবাহিনী দক্ষিণ কোরিয়ার অংশে নিজেদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করে। » দুই পরাশক্তি তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন অংশে নিজেদের ভাবধারাপুষ্ট সরকার গঠন করে এবং ৩৮ তম অক্ষরখা বরাবর করিয়াকে সমান্তরাল করে বিভক্ত করে। » তবে তা সত্ত্বেও ১৯৫০ সালে এ বিভক্তি অতিক্রম করেই দুই কোরিয়ার মধ্যে যুদ্ধ সংঘটিত হয়।
সীমারেখা
  পৃথক করেছে বিবরণ
» ম্যাজিনোলাইন ***
  জার্মান - ফ্রান্স একটি সুরক্ষিত ইলেকট্রিক বেস্টনী জার্মান আক্রমণ থেকে কক্ষা পাবার জন্য ফ্রান্স এটি নির্মাণ করে
» জিগফ্রিড লাইন ***
  জার্মান - ফ্রান্স এটি জার্মান কর্তৃক নির্মিত
» হিন্ডারবার্গ লাইন ***
  জার্মান - পোল্যান্ড প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় মিত্রপক্ষ জার্মান বাহিনীকে এ রেখা পর্যন্ত পিছু হটতে বাধ্য করেছিল
» ওডেরনিস লাইন ***
  জার্মান - পোল্যান্ড দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর মিত্রশক্তি পরাজিত জার্মানি ও পোল্যান্ডের মধ্যে এ সীমারেখা নির্দিষ্ট করে
» কার্জন লাইন ***
  পোল্যান্ড - সোভিয়েত ১৯১৯-১৯২০ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়ে চিহ্নিত সীমারেখা
» ফচ লাইন ***
  পোল্যানড - লিথুয়ানিয়া প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় নর্মিত
» মিলিটারী ডিমারকেশন লাইন ***
  উত্তর কোরিয়া - দক্ষিণ কোরিয়া কোরিয়া যুদ্ধের (১৯৫০ -১৯৫৩) সময় চিহ্নিত সীমারেখা
» নর্দান লিমিট লাইন ***
  উত্তর কোরিয়া - দক্ষিণ কোরিয়া পীত সাগরে দুই কোরিয়ার মধ্য চিহ্নিত সীমারেখা
» ম্যানারহেইম লাইন ***
  রাশিয়া - ফিনল্যান্ড জেনারেল ম্যানারহেইম কর্তৃক নির্মিত সুরক্ষিত সীমানা
» হট লাইন ***
  ক্রেমলিন (রাশিয়া) - হোয়াইট হাউস (ইউএসএ) সরাসরি টেলিফোন লাইন, কোন আকস্মিক যুদ্ধ এরানোর জন্য দু’পক্ষের আলোচনার সুবিধার্থে এ লাইন চালু করা হয়
» ডুরান্ড লাইন ***
  ভারত - আফগানস্তান
বর্তমান পাকিস্তান - আফগানিস্তান
১৮৯৬ সালে স্যার হেনরি মর্টিমার ডুরান্ড কর্তৃক চিহ্নিত সীমারেখা
» ম্যাকমোহন লাইন ***
  ভারত - তিব্বত (চিন) স্যার ম্যাকমোহন এ সীমানা নির্মাণ করেণ
» র‌্যাডক্লিফ লাইন ***
  ভারতর - মিয়ানমার/ পাকিস্তান/ বাংলাদেশ
বাংলাদেশ - মিয়ানমার
১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের সময় স্যার সাইরিল র‌্যাডক্লিফ কর্তৃক চিহ্নিত সীমারেখা
» লাইন অব কন্ট্রোল (LOC)***
  ভারত - পাকিন্তান কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখা
» লাইন অব একচুয়াল কন্ট্রোল ***
  ভারত - চীন ভারত এবং চীনের সীমান্তবর্তী রেখা
» লাইন অব ডিমারকেশন ***
  পর্তুগাল - স্পেন পর্তুগাল ও স্পেনের মধ্যে বিভক্তারী সীমারেখা
» প্লিমসল লাইন ***
  জাহাজ এটি জাহাজের গায়ে চিহ্নিত দাগ যা দ্বারা কতটুকু তলিয়েছে জানা যায়
» ওয়ালেস লাইন ***
  এশিয়া - অস্ট্রেলিয়া একটি কাল্পনিক রেখা
» ট্রারলেভ লাইন ***
  ইসরাইল - প্রতিবেশী দেশ এটি ইসরাইলীদের ম্যাঞ্জিসো লাইন নামে পরিচিত এটি বিশ্বের অন্যতম রক্ষাব্যুহ
» গ্রীন লাইন ***
  গ্রীক - তুর্কী / সাইপ্রাস ১৯৪৮ সালে আরব-ইসরাইল যুদ্ধের সময় ইসরাইল কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত সীমান্তরেখা
» পার্পল লাইন ***
  ইসরাইল - সিরিয়া ১৯৬৭ আরব-ইসরাইল যুদ্ধের সময় প্রতিষ্ঠিত সীমারেখা
» ব্লু লাইন **
  ইসরাইল - লেবানন ইসরাইল ও লেবাননকে বিভক্তকারী সীমারেকা
» ম্যাকনামারা লাইন ***
  উত্তর ও দক্ষিণ ভিয়েতনাম যুক্তরাষ্ট্রো কর্তৃক নির্মিত সুরক্ষিত বৈদ্যুতিক বেষ্টনী দু’ই ভিয়েতনাম এক হওয়ার পর এখন এর আর অস্তিত্ব নেই
» আলপাইন লাইন *
  ইতালি - ফ্রান্স ইতালি ও ফ্রান্সকে বিভক্তকারী সীমারেকা
» বারলেভ লাইন *
    ইসরাইলে অবস্থিত পৃতিবীর অন্যতম সুরক্ষিত প্রতিরক্ষা ব্যূহ
» সনোরা লাইন ***
  মেক্সিকো - যুক্তরাষ্ট্র মেক্সিকো ও যুক্তরাষ্ট্রকে বিভক্তকারী সীমারেকা
» ১ ° অক্ষরেখা *
  নিরক্ষীয় গিনি - গ্যাবন ১ ° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৮ ° অক্ষরেখা
  সোমালিয়া - ইথিওপিয়া ৮° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ১০° অক্ষরেখা
  গিনি - সিয়েরা লিওন ১০ °তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ১৭° অক্ষরেখা **
  উত্তর - দক্ষিণ ভিয়েতনাম ভিয়েতনাম যুদ্ধ অবসানের পর নির্মিত সীমারেখা
» ২০° অক্ষরেখা
  লিবিয়া - সুদান ২০° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ২২° অক্ষরেখা
  মিশর - সুদান ২২° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ২৪° অক্ষরেখা ***
  ভারত - পাকিস্তান পাকিস্তান গ্রহণ করলেও ভারত এ সীমানা মেনে নেয়নি
» ২৫° অক্ষরেখা
  মৌরিতানিয়া - মালি ২৫° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ২৬° অক্ষরেখা
  পশ্চিম সাহারা - মরক্কো-মৌরিতানিয়া ২৫° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৩১° অক্ষরেখা
  ইরান - ইরাক ৩১° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৩২° অক্ষরেখা
  ইরাক ৩২° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর ইরাকের দক্ষিণে নো ফ্লই জোন
» ৩৬ অক্ষরেখা
  ইরাক ৩৬° তম উত্তর অক্ষরেখা বরাবর ইরাকের উত্তরে নো ফ্লাই জোন
» ৩৮° অক্ষরেখা ***
  উত্তর - দক্ষিণ করিয়া দুই করিয়া বিভক্তির সময় পরাশক্তির মধ্য ৩৮ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৪৫° অক্ষরেখা **
  কানাডা - যুক্তরাষ্ট্র ৪৫° তম উত্তর অক্ষেরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৪৯° অক্ষরেখা **
  কানাডা - যুক্তরাষ্ট্র ৪৯° তম অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ১° দক্ষিণ অক্ষরেখা
  উগান্ড - তাঞ্জনিয়া/ কেনিয়া - তাঞ্জানিয়া ১° তম দক্ষিণ অক্ষারেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৭° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  কঙ্গো-অ্যাঙ্গোলা ৭° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৮° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  কঙ্গো - অ্যাঙ্গলা ৮° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ১০° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  ব্রাজিল - পেরু ১০° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ১৩ °তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  আ্যাঙ্গলা - জাম্বিয়া ১৩ °তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ১৬° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  মোজাম্বিক - জিম্বাবুয়ে ১৬° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ২২° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  নামিবিয়া - বতসোয়ানা
বলিভিয়া - আর্জেন্টিনা
২২° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৪৫° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  ইকুয়েডর - দক্ষিণ মেরু ৪৫° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
» ৫২° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা
  আর্জেন্টিনা - চিলি ৫২° তম দক্ষিণ অক্ষরেখা বরাবর চিহ্নিত সীমারেখা
Copyright © Sabyasachi Bairagi